মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন

নিউইয়র্কের রাস্তায় হোমলেস জন উইল

আনিসুর রহমান, ব্যুরো প্রধান, ইউএসএ
  • আপডেট সময় : 9:40 pm, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২
  • ৬৪ বার পঠিত

ওদের মাথা নষ্ট বা পাগল প্রায়। সারাবছর থাকেন আমেরিকার রাস্তায়। শীত বা গরম সব পরিস্থিতিতে রাস্তা এদের বাসস্থান। এদের আমেরিকায় বলে “হোমলেস”। তেমনি একজন হোমলেস মানুষ জন উইল। তার সাথে কথা হয় আমাদের যুক্তরাষ্ট্র ব্যুরো চিফ মো. আনিসুর রহমানের। তার প্রতিবেদনে উঠে এসেছে আমেরিকার হোমলেস মানুষদের করুন কাহিনী।

আমেরিকায় রাতের বাসস্থানের অভাব এমন লোকদের গৃহহীন বা হোমলেস বলে। ম্যাককিনি-ভেন্টো গৃহহীন সহায়তা আইন দ্বারা  একে বুঝানো হয়।২০১৪ সালে, আনুমানিক ১.৫ মিলিয়ন আশ্রয়হীন গৃহহীন লোককে গণনা করা হয়েছিল। ফেডারেল সরকারের পরিসংখ্যান ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অফ হাউজিং অ্যান্ড আরবান ডেভেলপমেন্টের বার্ষিক গৃহহীন মূল্যায়ন রিপোর্ট দ্বারা প্রস্তুত করা হয়েছে। ২০১৮ সালের হিসাবে, এইচইউডি জানিয়েছে যে একটি নির্দিষ্ট রাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৫৫৩,০০০ গৃহহীন লোক ছিল, যা মোট জনসংখ্যার ০.১৭%। বার্ষিক ফেডারেল এইচইউডি রিপোর্টগুলি বেসরকারী রাষ্ট্র এবং স্থানীয় রিপোর্টের বিরোধী যেখানে ২০১৪ সাল থেকে প্রতি বছর আমেরিকার বেশ কয়েকটি বড় শহরে গৃহহীনতা বৃদ্ধি পেয়েছে, ২০১৭ এবং ২০২৯ সালে ৪০ শতাংশ বৃদ্ধির সাথে উল্লেখ করা হয়েছে। জানুয়ারী ২০১৮-এ ফেডারেল সরকারের পরিসংখ্যান দেশব্যাপী ব্যাপক পরিসংখ্যান দিয়েছে, যার মোট সংখ্যা ৫৫২৮৩০ জন, যার মধ্যে ৩৫৮,৩৬৩ (৬৫%) প্রদত্ত আবাসনে আশ্রয় নিয়েছে, যখন কিছু ১৯৪৪৬৭ (৩৫%) আশ্রয়হীন ছিল।

ঐতিহাসিকভাবে, ১৮৭০-এর দশকে গৃহহীনতা একটি জাতীয় সমস্যা হিসেবে দেখা দেয়।  প্রারম্ভিক গৃহহীন লোকেরা উদীয়মান শহরগুলিতে বাস করত, যেমন নিউ ইয়র্ক সিটি। ১৯৩০ সালের মহামন্দা বেকারত্ব এবং সম্পর্কিত সামাজিক সমস্যা, দুর্দশা এবং গৃহহীনতার উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি ঘটায়। ১৯৯০ সালে, মার্কিন সেন্সাস ব্যুরো অনুমান করে যে দেশের গৃহহীন জনসংখ্যা  ২২৮৬২১ জন। ১৯৯০ এর মার্কিন আদমশুমারিতে গণনা করা ২৪৮,৭০৯,৮৭৩ এর ০.০৯% যা গৃহহীনতা একটি কম গণনা হিসাবে সমালোচিত হয়েছে। ২১’শ শতাব্দীতে, ২০০০  দশকের শেষের দিকের মহামন্দা এবং এর ফলে অর্থনৈতিক স্থবিরতা এবং মন্দা গৃহহীনতার হার বৃদ্ধির প্রধান চালিকাশক্তি এবং অবদানকারী বলে মনে করেন সমাজ বিজ্ঞানীরা।

যাক সে কথা। এখন আসি মুল কথায়। নিউইয়র্কের রাস্তায় অনুভূতিহীন একজন মানুষ। তার নাম জন উইল। তিন শিক্ষিত ও সফল মেয়ের বাবা জন উইল এখন হোমলেস। প্রচন্ড কুয়াশা ঝড়েও জন উইল কম্বল মুড়ি দিয়ে বসে থাকেন নিউইয়র্কের রাস্তায়। প্রকৃতির বিরূপ আচরণ যেন এদের সয়ে গেছে। তাইতো রাস্তায় থেকে থেকে এরা অভ্যস্থ। জন উইলের ৩ মেয়ের নাম হচ্ছে সানডে, সানিডে আর সিমেকা। তিনজনই আমেরিকার ব্যাচেলর ডিগ্রীধারী। জন উইল নিজেও হাইস্কুল ডিপ্লোমা পাশ। জন উইলের তিন মেয়ে স্বামী সন্তান নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের বুকলিন এলাকায় বসবাস করেন। জন উইল এক সময় ভাল কোঃ জব করে আসছিল। ৫ দিনে সে ৮০ ঘন্টা কাজ করত । স্ত্রী সন্তান নিয়ে ভালই ছিল জন উইল।

তাকে জিজ্ঞেস করলাম,  কোথায় থাক?

উত্তরে জন উইল হেসে হেসে বললো, Bronx টারমিনাল মার্কেটে রাস্তায়, ই ১৪৯ বিভার এভিনিউ ।

এরপর বলে, তুমি কেন এতো প্রশ্ন করো এবং কেন ছবি তোল । তাহলে আমাকে ১০০ ডলার দিতে হবে ।

ভয় পেয়ে আনিসুর রহমান তাকে শান্ত করার জন্য তার পাত্রে কোমল পানীয় দেয়।

জন উইল কতদিন যে গোসল করে না তা তার গায়ের দুর্গন্ধ থেকে বুঝা যায়। শীত ও গরমে এ ভাবে জীবন চলে তার ।

৭৮ বছর বয়সে আরাম আয়েশের জীবনের পরিবর্তে তার ঠিকানা এখন রাস্তা। আর তার পরিচয় সে হোমলেস। কি জীবন এদের।

আমেরিকার মত একটি স্বপ্ন পুরীতে এভাবে মানুষ বেঁচে আছে তা যেন কল্পনারও অতীত। এরা সরকারের সুযোগ সুবিধাও নেয় না । প্রতিনিয়ত জন উইলের মত হাজারো হোমলেসের সাথে দেখা হয় সকলের। পরিবারের বাঁধন এদের নেই। পরিবারও খোঁজ নেয় না এদের। তবুও জীবন চলে ধুকে ধুকে।

তবে, নিউইয়র্কের মেয়র এসব হোমলেসদের অপকর্মের জন্য তাদের নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানা গেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই রকম আরো জনপ্রিয় সংবাদ
© All rights reserved © 2017 Cninews24.Com
Design & Development BY Hostitbd.Com