মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন

করটিয়ার জমিদারেরা ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে অসামান্য অবদান রেখেছেন

গবেষনা- তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
  • আপডেট সময় : 4:10 pm, রবিবার, ১৫ মে, ২০২২
  • ৬৮ বার পঠিত

আমাদের দেশীয় ইতিহাস-ঐতিহ্যকে সমৃদ্ধ করেছেন টাঙ্গাইলের করটিয়ার জমিদারেরা। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে তাদের ছিল অসামান্য অবদান। তোফায়েল হোসেন তোফাসানি’র গবেষনায় লেখাটি আপনাদের উৎসর্গ করা হলো:-

ওয়াজেদ আলী খান পন্নী ছিলেন করটিয়ার জমিদারদের মধ্যে সবচেয়ে প্রজাহিতৈষী। তিনি ১৯২১ সালে জমিদার তথা ময়মনসিংহ জেলা কংগ্রেস ও খেলাফত কমিটির সভাপতি, বঙ্গীয় প্রাদেশিক কংগ্রেস কমিটির সহ-সভাপতি এবং নিখিল ভারত কংগ্রেসের নির্বাহী পরিষদ সদস্য হওয়া সত্ত্বেও ব্রিটিশ বিরোধী আযাদী আন্দোলন করে কারাবরণ করেন । ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে তাঁর অনমনীয় মনোভাব ও দৃঢ়তার জন্য ব্রিটিশ মিউজিয়ামে রক্ষিত তাঁর তৈলচিত্র আজো স্মরণীয় হয়ে আছে।
ওয়াজেদ আলী খান পন্নী করটিয়ার বিখ্যাত জমিদার পরিবারে ১৪ নভেম্বর ১৮৭১ সালে জন্মগ্রহণ করেন।
চাঁদ মিয়া প্রতিষ্ঠিত পিতামহের নামে করটিয়ার স্থাপিত ‘সা’দত কলেজ’(১৯২৬) টাঙ্গাইল তথা বৃহত্তর ময়মনসিংহে শিক্ষা বিস্তারে গর্বোন্নত শিরে দাঁড়িয়ে আছে। করটিয়ায় ইতিহাস খ্যাত মুসলিম এডুকেশন কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয় (১৯১০)। তার উদ্যোগে করটিয়ায় সারা বাংলার মুসলিম শিক্ষা সম্মেলন হয় এবং স্ত্রীর নামে রোকেয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন (১৯২৬)। চাঁদ মিয়া পিতার প্রতিষ্ঠিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে উচ্চ ইংরেজি শিক্ষার বিদ্যালয়ে উন্নীত করে ‘হাফেজ মাহমুদ আলী ইনস্টিটিউশন’ নামকরণ করেন (১৯০১)। এছাড়া তিনি বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, পত্র-পত্রিকা, বই পুস্তক প্রকাশনায় অর্থ দান করেছেন।
দানের ক্ষেত্রে ওয়াজেদ আলী খান পন্নী অদ্বিতীয় ছিলেন। এজন্যই তাকে ‘দানবীর’, ‘দ্বিতীয় মহসিন’উপাধিতে ডাকা হতো। ২৫ এপ্রিল (শনিবার) ১৯৩৬ সালে তিনি করটিয়ায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

করটিয়া জমিদারি বা পন্নী পরিবার টাঙ্গাইল জেলার একটি প্রাচীন জমিদার পরিবার। এ জমিদারির পন্নী পরিবারের সাদত আলী খান পন্নী সতেরো শতকের প্রথমদিকে করটিয়াতে বসবাস শুরু করলে তারা করটিয়ার জমিদার হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন।

উনিশ শতকের প্রথম দিকে সাদত আলী খান পন্নী সম্পত্তির মালিকানা নিয়ে নানা মামলায় জড়িয়ে পড়েন। ঢাকার জমিদার খাজা আলীমুল্লাহর সহায়তায় তিনি পৈত্রিক সম্পত্তি উদ্ধার করেন, কিন্তু শর্ত ভঙ্গের কারণে পাল্টা মামলা করে খাজা আলিমুল্লাহ ভোগ-স্বত্বের ডিক্রি লাভ করেন। তখন সাদত আলী খান সম্পত্তি রক্ষার জন্য স্ত্রী জমরুদুন্নেসা খানমের নামে তা দানপত্র করে দেন। পরে অবশ্য উভয় পক্ষের মধ্যে আপোষ মীমাংসা হয়। সাদত আলী খান সম্পত্তির ৭ আনা অংশ খাজা আলিমুল্লাহকে ছেড়ে দেন। অতঃপর বাংলা ১২২৭ সনের ৯ পৌষ সাদত আলী খান এবং তাঁর স্ত্রী জমরুদুন্নেসা খানম যৌথভাবে একটি দলিল করেন। এতে সমস্ত সম্পত্তি দুটি ভাগে বিভক্ত করে এক ভাগ পরিবারের ব্যয় ও অন্য ভাগ ওয়াকফ্ করে ধর্মীয় ও দাতব্য কাজে ব্যয় করার জন্য নির্দিষ্ট করা হয়। ওয়াকফ্ সম্পত্তি দেখাশুনা করার জন্য মুতাওয়াল্লী নিয়োগের বিধান রাখা হয়। সাদত আলী খান পন্নীর মৃত্যুর পর তাঁর পুত্র হাফেজ মাহমুদ আলী খান পন্নী মুতাওয়াল্লী ছিলেন। মাহমুদ আলী খান পন্নীর মৃত্যুর (১৮৯৬) পর মুতাওয়াল্লী কে হবেন এ নিয়ে তাঁর পুত্র ওয়াজেদ আলী খান পন্নী (চাঁদ মিয়া) এবং পিতামহী জমরুদুন্নেসা খানমের মধ্যে বিবাদ ও মামলা মোকদ্দমা সংঘটিত হয়। পরিশেষে ওয়াজেদ আলী খান পন্নী জয়ী হন এবং দক্ষতার সঙ্গে জমিদারি পরিচালনা করেন।

ওয়াজেদ আলী খান পন্নী (চাঁদ মিয়া) ছিলেন করটিয়া জমিদারকুলের সবচেয়ে স্বনামধন্য। তিনি জমিদারি সম্প্রসারণসহ প্রজাদের সকল সুযোগ সুবিধা প্রদানে মনোনিবেশ করেন। তিনি ১৯০১ সালে করটিয়াতে হাফেজ মাহমুদ আলী ইনস্টিটিউশনটি স্থাপন করেন। তাঁর উদ্যোগে ১৯০৬ সালে করটিয়াতে নিখিল বাংলা মুসলিম শিক্ষা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন নওয়াব স্যার সলিমুল্লাহ। ১৯১০ সালে চাঁদমিয়া করটিয়াতে আয়োজন করেন মুসলিম এডুকেশন কনফারেন্স। তিনি ময়মনসিংহ জেলা কংগ্রেস এবং বঙ্গীয় প্রাদেশিক কমিটির সহসভাপতি ছিলেন। ব্রিটিশ সরকারের কতিপয় অন্যায় ব্যবস্থার প্রতিবাদ করে ১৯২১ সালে তিনি কারাবরণ করেন। ওয়াজেদ আলী খান পন্নী কর্তৃক করটিয়ায় প্রতিষ্ঠিত সাদত কলেজ (১৯২৬) পূর্ব বাংলায় মুসলমান কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত একটি অনন্য কলেজ। একই বছর তিনি রোকেয়া হাই মাদ্রাসা স্থাপন করেন। তিনি ১৯২৬ সালে জনহিতকর কাজের জন্য বিপুল পরিমাণ সম্পত্তি ওয়াক্ফ করে দেন। এ ওয়াক্ফ দলিলে সকল খরচ বাদে বার্ষিক নিট আয় ধরা হয় ৮০,০০০ টাকা। এ অর্থ থেকে ২০,০০০ টাকা নিজ পরিবারের ভরণপোষণের জন্য রেখে বাকি টাকা স্কুল, কলেজ, চিকিৎসালয়, মসজিদ ইত্যাদির সহায়তার জন্য দান করা হয়। ১৯৩৬ সালে তাঁর মৃত্যু হয়।

ওয়াজেদ আলী খানের পিতা হাফেজ মাহমুদ আলী খান পন্নীর অর্থানুকুল্যে ও পৃষ্ঠপোষকতায় মুন্সি নইমুদ্দীনের সম্পাদনায় করটিয়া থেকে ১৮৮৪ সালে আখবারে ইসলামীয়া পত্রিকা প্রকাশিত হতো। করটিয়া জমিদার বাড়ির প্রেস হতে রসিক লাল বসু রচিত আতিয়ার ইতিহাস, ফতোয়ায়ে আলমগিরী (অনুবাদ), মওলানা নঈম উদ্দিনের জুবদাতুল মাসায়েল প্রভৃতি পুস্তক প্রকাশিত হয়। হাফেজ মাহমুদ আলী খান পন্নী করটিয়ায় স্থাপন করেন মাহমুদীয়া মাদ্রাসা ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

ওয়াজেদ আলী খানের দৌহিত্র খুররম খান পন্নী পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের চীপ হুইপ এবং একজন রাষ্ট্রদূত ছিলেন। অপর দৌহিত্র হুমায়ন খান পন্নী বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার ছিলেন। খুররম খান পন্নীর পুত্র ওয়াজেদ আলী খান পন্নী (দ্বিতীয়) বাংলাদেশ সরকারের উপমন্ত্রী ছিলেন।
করটিয়া জমিদার বাড়ির লোহার ঘর, রোকেয়া মহল, দাউদ মহল ঐতিহাসিক সাক্ষী হিসেবে টিকে আছে।
করটিয়া ওয়াকফ স্টেটের বর্তমান মোতয়াল্লী ওয়াজিদ আলী খান পন্নী এবং সাবেক ষ্পীকার হুমাযূন খান পন্নীর মেয়ে সোনিয়া পন্নী তাঁর পিতার সকল সম্পত্তি দেখাশোনা করে আসছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই রকম আরো জনপ্রিয় সংবাদ
© All rights reserved © 2017 Cninews24.Com
Design & Development BY Hostitbd.Com