,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

পরকিয়া প্রেমিককে নিয়ে স্বামীকে হত্যা

সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি:

সাভারের আশুলিয়া পরকিয়া প্রেমিককে নিয়ে স্বামীকে হত্যা করে লাশ গ্রামে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এঘটনায় নিহতের বাবা বিল্লাল হোসেনে আশুলিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা করেছে। পরে মঙ্গলবার দুুপুরে গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- হত্যাকান্ডের শিকার প্রতীক হাসানের স্ত্রী লিজা আক্তার (১৮), লিজার মা লাকী বেগম, দাদি ফুলজান ও চাচাতো বোন জামাই সুজন মিয়া ও পরকিয়া প্রেমিক সেলিম। নিহতের নাম প্রতীক হাসান (৩০)। তিনি ঘাটাইলের লক্ষ্মীন্দর ইউনিয়নের বিল্লাল হোসেনের ছেলে। তার মা হাসনা বেগম ওই ইউনিয়নের সংরক্ষিত ইউপি সদস্য। নিহতের পরিবার সুত্রে জানা যায়, এক বছর আগে একই উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের ঘোনার দেউলি গ্রামের লেবু মিয়ার মেয়ে লিজা আক্তারের সঙ্গে প্রতীক হাসানের বিয়ে হয়। বিয়ের পরই ঢাকার আশুলিয়া গিয়ে স্বামী প্রতীক হাসান একটি পোশাক কারখানায় চাকরি নেয়। আর লিজা ওখানেই গৃহপরিচিকার কাজ করতো। স্বামী পোশাক কারখানায় কাজ করতে গেলে একই বাসায় সিরাজগঞ্জের সেলিম নামে এক ভাড়াটিয়া যুবকের সঙ্গে তার পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত শনিবার এ বিষয় নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। ওই সময় লিজা ও পরকীয়া যুবক মিলে প্রতীক হাসানকে মারপিট ও শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে লাশটি শ্বশুরবাড়ি নিয়ে স্ট্রোক করে মারা গেছে বলে তার শাশুড়িকে জানায়। বিষয়টি সন্দেহ হলে তাদের আটক করে পুলিশকে খবর দেয়া হয়। পরে পুলিশ তাদেরকে আটক করলে লিজা আক্তার পরকিয়া প্রেমিককে নিয়ে স্বামীকে হত্যার কথা স্বীকার করে। বিল্লাল জানান, আমার ছেলে আশুলিয়ায় গার্মেন্টে চাকুরি নেয়। এরই মধ্যে সেলিম নামে এক যুবকের সঙ্গে পরকীয়ায় জরিয়ে পড়ে লিজা। গত শনিবার প্রতিক হাসান গ্রামের বাড়ি আসে। লিজাও ঘাটাইল উপজেলার ধলাপাড়ায় তার এক আত্মীয়ের বাড়ি আসেন। লিজা ফোনে যোগাযোগ করে প্রতিক হাসানকে আবার গাজীপুর নিয়ে যায়। এর মধ্যে ছেলের সঙ্গে তার এবং পরিবারের কারো সঙ্গে কোনো যোগাযোগ হয় না। পরে রবিবার রাতে লিজার বাবা ফোন করে বলেন, প্রতিক স্টোক করে মারা গেছে। আমরা লাশ নিয়ে গ্রামের বাড়ি আসতেছি। পরে সোমবার সকাল ৯ টার দিকে প্রতিকের লাশের সঙ্গে তার স্ত্রী এবং শ্বাশুড়ি বাড়িতে আসে। আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত ) মো. জিয়াউল ইসলাম বলেন, হত্যকান্ডের ঘটনায় নিহতের বাবা বিল্লাল হোসেন বাদি হয়ে ৫ জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা করেছেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছেন। এঘটনায় অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ আসামীকে রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: সি-৫/১, (৪র্থ তলা) ছায়াবীথি, সাভার, ঢাকা-১৩৪০
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
ঢাকা অফিস : বিএনএস সেন্টার (৯তলা), প্লট-৮৭, সেক্টর-০৭, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০
Design & Developed BY PopularITLimited