,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

বাগেরহাটে লকডাউনের প্রথম দিনে কঠোর অবস্থানে প্রশাসন

স্টাফ রিপোর্টার:

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) ভোর ৬টা থেকে শুরু হওয়া লকডাউন বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে বসানো হয়েছে পুলিশের চেকপোস্ট। বেশির ভাগ রাস্তাঘাট ছিল ফাঁকা। অতি জরুরি প্রয়োজনে রাস্তায় এসে যানবাহন না পেয়ে বিপাকেও পড়েছেন অনেকে। হেঁটে গন্তব্যের দিকে রওনা দিতে দেখা গেছে অনেককে।

করোনা সংক্রমণরোধে এই লকডাউনের প্রশংসার পাশাপাশি দিনমজুর ও হতদরিদ্রদের খাবারের বিষয়ে নজর দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন ইজিবাইক ও রিকশাচালকরা।

এদিন সকালে বাগেরহাট কেন্দ্রীয় বাসস্টান্ড, ট্রাফিক মোড়, সাধনার মোড়, মিঠাপুকুরপাড়সহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশের চেকপোস্ট দেখা যায়। রোগী ও জরুরি পরিবহন ছাড়া অন্য যে কোনো পরিবহনকে বাড়িতে ফিরিয়ে দিতে দেখা যায় পুলিশকে। সব প্রকার গণপরিবহন বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে হেঁটে গন্তব্যে যেতে দেখা অনেককে।

বাগেরহাট সদর উপজেলার পুটিমারি এলাকার বিউটি দাস বলেন, রাতে লকডাউনের খবর শুনেছি। মনে করেছি শুধু বাস বন্ধ থাকবে। কিন্তু বাসস্ট্যান্ডে এসে দেখি রিকশা, অটো, মাহিন্দ্রা, ইজিবাইক সবই বন্ধ। তাই হেঁটেই রওনা দিয়েছি। কয়রা থানায়, জরুরি কাজ যেতেই হবে।

বাবা ও ভাইকে নিয়ে হেটে খুলনা রওনা দেওয়া শিহাব রহমান বলেন, দুই দিন আগে আত্মীয়ের বাড়িতে এসেছিলাম। লকডাউন হওয়ায় খুব বিপদে পড়ে গেছি। তাই হেঁটে রওনা দিয়েছি। পথিমধ্যে যদি কোনো বাহন পাই তাতে উঠে পড়ব।

বাসস্ট্যান্ড এলাকায় থাকা আজিজ, সুমন, শরীফ, মো. আলিফসহ কয়েকজন ইজিবাইক চালক বলেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে দেওয়া লকডাউন আমরা মানি। সরকার যেভাবে বলবে আমরা মেনে চলব। তবে রাস্তায় না বের হলে, গাড়ি না চালালে আমাদের চলে না। লকডাউনের সময় রিকশাচালক, ইজিবাইক চালক, মাহিন্দ্রা চালকসহ দিনমজুরদের খাদ্য সহায়তা দেওয়ার দাবি জানান তারা।

রিকশাচালক মো. আব্দুল কুদ্দুস বলেন, রিকশা না চালালে খাব কি। তাইতো রিকশা নিয়ে বের হয়েছি। বুঝেশুনে চালাচ্ছি। যেসব জায়গায় পুলিশের চেকপোস্ট রয়েছে, তা এড়িয়ে চলছি।

এ বিষয়ে বাগেরহাটের পুলিশ সুপার কে এম আরিফুল হক বলেন, লকডাউন বাস্তবায়নে আমরা জেলার ১৩টি স্থানে চেকপোস্ট বসিয়েছি। রোগী এবং জরুরি কাজে ব্যবহৃত পরিবহন ছাড়া অন্য কোনো পরিবহন চলতে দেওয়া হচ্ছে না। এ ছাড়া পুলিশের ভ্রাম্যমাণ টিম কাজ করছে। যেসব মানুষ অতিপ্রয়োজনে রাস্তায় বের হয়েছে, তাদেরকে মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে পুলিশ কাজ করছে।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মোহাম্মাদ আজিজুর রহমান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে এবং সব বিধিনিষেধ কার্যকর করার জন্য জেলা প্রশাসনের পাশাপাশি সব উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। মানুষকে সচেতন করার জন্য মাইকিংও করা হচ্ছে। মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করতে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। সব শ্রেণিপেশার মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

 

Leave a Reply

প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: সি-৫/১, (৪র্থ তলা) ছায়াবীথি, সাভার, ঢাকা-১৩৪০
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
ঢাকা অফিস : বিএনএস সেন্টার (৯তলা), প্লট-৮৭, সেক্টর-০৭, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০
Design & Developed BY PopularITLimited