,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

অনিয়ম দুর্নীতি ও নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারকে অব্যাহতি

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার:

বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতি ও নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগে সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মোঃ দেলোয়ার হোসেনকে প্রতিষ্ঠান থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় এনে ট্রাস্টি বোর্ডের সকল সদস্যের সম্মতিক্রমে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

শনিবার বিকেলে ঢাকার ধানমন্ডি গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতাল ভবনের মেজর এটিএম হায়দার বীরউত্তম মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত গণ বিশ্ববিদ্যালয় ট্রাস্টি বোর্ডের এক জরুরী সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র জনসংযোগ কর্মকর্তা শারমিন সুলতানা শনিবার সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশিচত করেছেন ।

ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে অধ্যাপক ড. আমিরুল ইসলাম চৌধুরীসহ আরো অনেকে এসময় উপস্থিত ছিলেন।

গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সূত্র জানায়, ভুয়া শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট দিয়ে ২০০২ সালের ৩ আগস্ট গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন দেলোয়ার হোসেন। কিন্তু বর্তমান ট্রাস্টি বোর্ড তার আচার-আচরণ দেখে শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন। এ অবস্থায় ট্রাস্টি বোর্ড গোপনে মোঃ দেলোয়ার হোসেনের শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়ে তদন্ত করেন এবং জানতে পারেন তিনি মাস্টার ডিগ্রীধারী বা গ্রাজুয়েটও নন। তিনি এইচএসসি পাস মাত্র। বিষয়টি টের পেয়ে রেজিস্ট্রার মোঃ দেলোয়ার হোসেন তার অফিসে রক্ষিত ব্যক্তিগত ফাইল গায়েব করে দিয়েছেন। এক পর্যায়ে দেলোয়ার হোসেনকে ভাউসারসহ যে কোন অনুমোদন, ব্যাংক চেকে স্বাক্ষরসহ সকল অফিসিয়াল কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা হয়েছে। নূতন চেক সিগনেটরী নির্ধারণ করা হয় উপাচার্য্য ডা. লায়লা বানু ও একাউন্স এন্ড ফিন্যান্সের ডেপুটি ডিরেক্টর মো: আব্দুল কাদেরকে।

জানা যায়, মোঃ দেলোয়ার হোসেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রায় ২০ বছর কর্মরত রয়েছেন। তিনি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিরাপত্তা প্রহরী হিসাবে যোগদান করে অন্যের জমি দখল, জমির ভুয়া দলিল তৈরী, মিথ্যা মামলা দিয়ে প্রতিপক্ষকে হয়রানী করা ও মারামারিতে পারদর্শিতা দেখিয়ে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে নিজের স্থান পাকা পোক্ত করে নেন। তিনি নিজেকে এম এ ইন পলিটিক্যাল সাইন্স, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, পরিচয় দিয়ে অবস্থান উর্ধে নিতে থাকেন। এভাবে গণস্বাস্থ্যে ২০ বছর চাকুরী করেন। যার মধ্যে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উচ্চতর প্রশাসনিক পদেও বিশেষ করে পরিচালক প্রশাসন/নির্বাহী পরিচালকের পদেও দায়িত্ব পালন করেন।

মোঃ দেলোয়ার হোসেন একদিকে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে প্রতারনা করে নিরাপত্তাপ্রহরী ইনচার্জ থেকে উচ্চতর পদে থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা প্রতারনা করেছেন। তিনি যখন গণ বিশ^বিদ্যালয় যোগদান করেন তখন গণস্বাস্থ্যে তার বেতন ছিল ৪০ হাজার টাকা।

এছাড়াও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে থাকাকালীন সময়ও নারী কেলেঙ্কারীতে জড়িয়ে পড়েন দেলোয়ার হোসেন। তার নিয়ন্ত্রণে কর্মরত অনেক নারীই নিগৃহীত হয়েছেন। তারা অনেকেই চাকুরী হারানো ও সামাজিকতার ভয়ে এসব প্রকাশ করতেন না।

আবার গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে নারীদের যৌন হয়রানীর বিষয়ও ইতিপূর্বে খবর প্রকাশিত হয়েছে। সম্প্রতি ২৬ মিনিটের একটি অডিও রেকর্ড ফেইসবুকে প্রকাশিত হয়েছে যাতে রেজিস্ট্রার দেলোয়ার হোসেন এক মহিলাকে প্রলোভন দেখাচ্ছে বলে রেকর্ডকৃত টেপ পাওয়া গেছে। রেজিস্ট্রারের এসব আচরণের কারণে অনেক অভিভাবক তাদের মেয়েকে গণ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। মেয়েদের ভর্তি অনেক কমে গেছে।

Leave a Reply

VIDEO_EDITING_AD_CNI_NEWS
প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, ৫৭, সুলতান মার্কেট (তয় তলা), দক্ষিনখান, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
আঞ্চলিক অফিস : সি-১১/১৪, আমতলা মোড়, ছায়াবিথি, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা।
Design & Developed BY PopularITLimited