,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

‘আত্মহত্যা নয়, সুশান্তের সঙ্গে ভয়ংকর কিছু হয়েছিল’

বিনোদন ডেস্ক:

সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুর দেড় মাস পর মুখ খুললেন তার প্রাক্তন প্রেমিকা অঙ্কিতা লোখান্ডে। কোনো রাখঢাক না রেখেই অঙ্কিতা বলেন, সুশান্ত কোনোভাবেই আত্মহত্যা করতে পারে না। আর অবসাদগ্রস্ত হওয়ার ছেলেও নয় সে। আমি নিশ্চিত ওর সঙ্গে ভয়ংকর কিছু হয়েছে। আমি সেই ভয়ংকরকে জানতে চাই।

‘রিপাবলিক টিভি’কে দেয়া একটি সাক্ষাৎকারে অঙ্কিতা বলেন, তার সঙ্গে বহুবার আত্মহত্যার বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন, মানুষ কেন আত্মহত্যা করে? এ প্রসঙ্গে আলোচনা করতে গিয়ে সুশান্ত বলেছিল আমার জীবনে এ রকম কোনো পরিস্থিতি এলে আমার জাস্ট ১৫ মিনিট লাগবে নিজেকে ওই ভাবনা থেকে সরিয়ে নিয়ে অন্য কাজে মন দিতে।

অঙ্কিতা এ ঘটনা বলে বুঝিয়ে দিতে চান সুশান্তের মৃত্যু আত্মহত্যা নয়।

সুশান্ত অবসাদে ভুগছিলেন বলে চারদিকে যে আলোচনা সেই প্রসঙ্গ টেনে অঙ্কিতা বলেন, সুশান্ত অবসাদে ভোগার মতো ছেলেই নন। সাফল্য আর ব্যর্থতা দুটোই খুব সহজ ভাবে নিতে জানতেন তিনি।

অঙ্কিতা জানান, ছয় বছর লিভ-ইন রিলেশনশিপে ছিলেন তারা, সে সময় অঙ্কিতা দেখেছেন সুশান্ত ডায়েরি লিখতেন। তাতে তিনি লিখেছিলেন, পাঁচ বছর পর কোথায় নিজেকে দেখতে চান। আর বিস্ময়ের সঙ্গে অঙ্কিতা জানান, আর সেই লক্ষ্যের প্রত্যেকটা সে সম্পূর্ণ করেছে! এত পজিটিভ এনার্জির ছেলে হুট করে আত্মহত্যা করবে কেন? কিছুতেই এটা মেনে নিতে পারছেন না অঙ্কিতা।

সুশান্তের ব্যর্থতার জায়গা নিয়ে বলতে গিয়ে অঙ্কিতা বলেন, আমাকে বলত কী হবে? আমার ফিল্ম চলবে না? তথ্যচিত্র বানাব। সেটা না চললে অরগ্যানিক ফার্ম করব। অর্থাৎ কোনো না কোনো পথে ও ঠিক বেরিয়ে যেত। আমার খুব খারাপ লাগছে এ রকম ফোকাসড একজন মানুষের চলে যাওয়াকে অবসাদ আর আত্মহত্যা বলে অসম্মানিত করা হচ্ছে!

ক্ষোভে ফেটে পড়েন মানবের (সুশান্ত) অর্চনা (অঙ্কিতা)। ধারাবাহিকের এ নামেই তারা বিখ্যাত ছিলেন।

অঙ্কিতার রাগে অভিমানে বলতেই থাকেন, কাউকে বাইপোলার বলে দেয়া এত সহজ? আমি ওর সঙ্গে বহুদিন কাটিয়েছি। আমরা দু’জনে অনেক কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়েও গেছি। তাই জোর দিয়ে বলতে পারি সুশান্ত অবসাদে যাবেই না। ওর কাছে অনেক বিষয় ছিল নিজেকে জীবনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার। কোথাও কোনো গণ্ডগোল আছে। শেষ এক বছর সবচেয়ে প্রিয় দিদির থেকেও দূরে চলে গিয়েছিল সে। কেন? আসল তথ্য এবার বেরিয়ে আসুক। আর কিছু চাই না আমি।

কথাগুলো মিডিয়ায় বলতে বেশ কষ্ট হয়েছিল অঙ্কিতার। তার চোয়াল শক্ত হয়ে যাচ্ছিল, কখনও তিনি যেন একটু ভেঙেও পড়ছিলেন। কিন্তু সুশান্তের মৃত্যুর ন্যায়বিচারের জন্য তিনি এগিয়ে এলেন।

রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে খোদ সুশান্ত সিংহ রাজপুতের বাবা কেকে সিংহ পটনার রাজেন্দ্রনগর থানায় মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) এফআইআর দায়ের করার পরই উত্তপ্ত সোশ্যাল মিডিয়া। সেই উত্তেজনা আরও বাড়িয়ে দিয়েছিলেন অঙ্কিতা লোখান্ডে। ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে কালো ব্যাকগ্রাউন্ডে সাদা অক্ষরে তিনি লেখেন, সত্যের জয়। রিয়ার বিরুদ্ধে এফআইআর-এর পরই ইনস্টাগ্রামে এভাবে লিখে ঠিক কী বোঝাতে চাইছেন অঙ্কিতা? তাই নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।

টানা এক মাস তিনি চুপ ছিলেন। সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে যখন সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় তখন মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন অঙ্কিতা লোখন্ডে। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে নিজেকে দূরে রেখেছিলেন। তার আশপাশে প্রবেশের অধিকার ছিল না মিডিয়ারও। ঘনিষ্ঠ সূত্র থেকে জানা গিয়েছিল, অঙ্কিতা ভালো নেই। হোক না সুশান্ত প্রাক্তন, তার এভাবে চলে যাওয়াটা কিছুতেই মানতে পারছেন না অঙ্কিতা। এবার সুশান্ত প্রসঙ্গে সব সত্যি প্রকাশ করে সরাসরি মাঠে নেমে সুশান্তের ন্যায়বিচারের জন্য লড়াইয়ে শামিল হলেন অঙ্কিতা। বিহার পুলিশও তার বক্তব্য রেকর্ড করেছে। এবার তদন্ত কোন পথে এগোয় সেদিকেই তাকিয়ে সুশান্ত-ভক্তরা।
গত ১৪ জুন বান্দ্রায় নিজের ফ্ল্যাট থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় অভিনেতা সুশান্ত সিংহ রাজপুতের দেহ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানায়, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। আত্মহত্যার কারণ অনুসন্ধানের জন্য এখন পর্যন্ত প্রায় ৪০ জনকে জেরা করেছে মুম্বাই পুলিশ। এদের মধ্যে রিয়া ছাড়াও রয়েছেন পরিচালক মহেশ ভাট, সঞ্জয়লীলা বানসালিসহ বলিউডের নামজাদা ব্যক্তিরা।

Leave a Reply

VIDEO_EDITING_AD_CNI_NEWS
প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, ৫৭, সুলতান মার্কেট (তয় তলা), দক্ষিনখান, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
আঞ্চলিক অফিস : সি-১১/১৪, আমতলা মোড়, ছায়াবিথি, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা।
Design & Developed BY PopularITLimited