,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

সাভারের বনগাঁওয়ে চেয়ারম্যান সাইফুলের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


ঢাকার সাভারের বনগাঁও ইউনিয়ন একটি অবহেলিত জনপদ। এই জনপদে বিভিন্ন সময় জনপ্রতিনিধিরা নির্বাচিত হলেও এলাকার উন্নয়নে তেমন কোন ভূমিকা রাখেনি। বর্তমানে ইউনিয়নটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে সাইফুল ইসলাম বিভিন্ন অভিযোগে জড়িয়ে পরছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। অন্যের জমি দখল করে রাস্তা করা, ক্যাডার বাহিনী দিয়ে ভয়-ভীতি দেখানো, সাংবাদিকদের হুমকী প্রদানসহ নানা অভিযোগ রয়েছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। যে কারণে ইউনিয়ন পরিষদের সিংহভাগ সদস্য অনাস্থা এনেছেন এই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। তবুও থেমে নেই সাইফুল ইসলাম।


অনুসন্ধানে জানাগেছে, সাভারের বনগাঁও ইউনিয়নে গড়ে উঠছে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান। রয়েছে অনেক ইটভাটা। চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম এবছর ট্যাক্সের নামে এসব ইটভাটা থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করে তা সরকারী কোষাগারে সঠিকভাবে জমা দেননি। চেয়ারম্যানের নিজস্ব ক্যাডার বাহিনী দিয়ে সরকারী জমি থেকে মাটি কেটে বিক্রি করে এখান থেকেও তিনি হাতিয়ে নিচ্ছেন মোটা অংকের অর্থ।
চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের ভাতিজা ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ ফারুক ও জাকির জড়িত ফেন্সিডিল ব্যবসার সাথে। এলাকাবাসী এদেরকে হাতেনাতে ধরলেও মারামারি করে তারা ছুঁটে যায়। এরপর লাঠি বাহিনী দিয়ে আতংক সৃষ্টি করে এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে তারা।
করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে সরকারী ত্রাণ ব্যবস্থাপনায়ও অনিয়ম করেছেন চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম। এতে করে ত্রাণের খাদ্য বিতরণের সময় বঞ্চিত হয়েছেন অনেক অসহায় ও দরিদ্র পরিবার। সরকারের আড়াই হাজার টাকা করে বিতরণের প্রকল্পে চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম তাঁর নিজস্ব লোকজনকে এ টাকা বিতরণ করেন। একই মোবাইল ফোন নম্বর ব্যবহার করে এমনকি তাঁর নিজস্ব লোকজনদের মোবাইল ফোন নম্বর ব্যবহার করে তালিকায় যাদের না দেয়া হয়েছে তারা এই আড়াই হাজার টাকা পাননি বলে অভিযোগ রয়েছে। চেয়ারম্যানের এ ধরনের তালিকা অনুসন্ধান করলে বড় ধরনের দুর্ণীতি বেরিয়ে আসবে বলে জানায় ভুক্তভোগীরা।
করোনাকালে সরকারী ত্রাণ সামগ্রী নিজের ব্যক্তিগত ত্রাণ বলে বিতরণেরও অভিযোগ রয়েছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।
চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের আত্মীয় পরিচয়ে ফরিদ, ফারুক, আজিজুল এলাকায় অবৈধ গ্যাস লাইন দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। যার একটি অংশ প্রতিমাসে পেয়ে থাকেন সাইফুল ইসলাম।
রিক্সা ও অটোরিক্সার লাইসেন্স বাবদ অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগও রয়েছে বনগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে। তার নিজস্ব লোকজন দিয়ে চলে তার পরিষদের কার্যক্রম। ইউপি সদস্যদের অবমূল্যায়ন করে উন্নয়ন কাজে তাদের অংশ গ্রহণ করতেও বাঁধা প্রদানের অভিযোগ আছে।
এলাকায় একজন হিন্দু মেয়েকে ধর্ষণ করার ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে সেই পরিবারটিকে ভয়-ভীতি দেখানো এবং সম্প্রতি মন্দির ভাংচুরের ঘটনাকে অন্যখাতে প্রবাহিত করে পুলিশের চোখকে ফাঁকি দিয়েছেন বলে জানান এলাকার সচেতন লোকজন। যে কারণে এই ইউনিয়নবাসীর সুবিচারের পথ রুদ্ধ হয়ে গেছে।
সম্প্রতি কুন্ডা সরকারী রাস্তা নির্মানের নামে অন্যের জমি দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামেরে বিরুদ্ধে। এ নিয়ে বনগাঁও ও কুন্ডা এলাকায় বিরাজ করছে উত্তেজনা। জমির মালিকরা তাদের জমির উপর দিয়ে রাস্তা নিতে নিষেধ করলে চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের নিজস্ব ক্যাডার বাহিনী দিয়ে তাদের ভয়-ভীতি দেখিয়েছেন। এ ব্যাপারে সাভার মডেল থানায় সাধারণ ডায়রী করেছেন ভুক্তভোগীরা।
রাস্তা নির্মান নিয়ে অভিযোগ পেয়ে সংবাদ কর্মীরা সংবাদ সংগ্রহে যান কুন্ডা এলাকায়। এ সময় চেয়ারম্যানের ভাড়া করা সন্ত্রাসী বাহিনী সংবাদকর্মীদের উপর চড়াও হয়। এই ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ভাইরাল হয়। এ ব্যাপারে কথা বলতে পরদিন বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদে সংবাদ কর্মীরা সাক্ষাতকারের জন্য গেলে তাদের হুমকী-ধামকী দিয়ে পরিষদের কক্ষ থেকে বেরে করে দেন চেয়ারম্যান সাইফুল।

কেন জমি দখল?
সাভারের বনগাঁওয়ে চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের মালিকানাধীন এসএ হাউজিং প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে তিনি দখল করে নেন অন্যের জমি। ভরাট করেন জলাশয়, পুকুর। সরকারী ও ব্যক্তিমালিকানাধীন গাছ কেটে উজার করে ফেলেন এলাকা। পরিবেশের ভারসাম্যের কথা চিন্তা না করে এসব কাজ করায় এলাকাবাসী ও ভুক্তভুগীরা প্রতিবাদও করেছেন। কিন্তু এসএ হাউজিং প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম ভূমিদস্যুদের চেয়েও ভংকর হয়ে উঠেছেন। অভেধভাবে ড্রেজার লাগিয়ে নদী থেকে মাটি ভরাট করায় ক্ষুদ্ধ পরিবেশবাদীরা। যেখানে সরকার ড্রেজার দিয়ে নদী থেকে মাটি ভরাট নিষিদ্ধ করেছেন, সেখানে চেয়ারম্যান সাইফুল নিজেই ড্রেজার লাগিয়ে এ ধরনের কাজ করে আসছেন বলে দেখাগেছে।
এ ব্যাপারে গত মঙ্গলবার (৩০ জুন) সুগন্ধা হাউজিংয়ের মো. আব্দুল মোতালেব থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।
এর আগেও চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে জমি দখলের একাধিক অভিযোগ রয়েছে । অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, সুগন্ধা হাউজিং এর ক্রয়কৃত সম্পত্তিতে বাঁধ নির্মাণ করে ড্রেজার দিয়ে বালু ভরাট করে দখলের পাঁয়তারা করছে বনগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের লোকজন।
এসময় সুগন্ধা হাউজিংয়ের লোকজন তাদেরকে বাধা দিতে গেলে চেয়ারম্যান সাইফুলের ক্যাডার বাহিনী তাদের ওপর চড়াও হয়। এই ঘটনায় উত্তেজনা সৃষ্টি হলে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
এ ব্যাপারে সাভারের বনগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনীত সব অভিযোগ মিথ্যে। প্রতিপক্ষ এসব অভিযোগ বিভিন্নজনের কাছে বলে বেড়াচ্ছেন। বর্তমানে রাস্তা নিয়ে সমস্যা সৃষ্টির কথা স্বীকার করে বলেন, যারা তাদের জমি দখল হয়েছে বলে অভিযোগ করছেন আমি তাদের জমি দখল করিনি। সংবাদকর্মীদের কক্ষ থেকে বের করে দেয়ার কথা স্বীকার করে তিনি আরো জানান, ভিডিওটি দুই মাস আগের।
এ বিষয়ে সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম সায়েদ বলেন, জমি দখলের লিখিত অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ব্যক্তিগত জমি ভরাট করা হলে কাজ বন্ধ করে দেওয়া হবে।

Leave a Reply

VIDEO_EDITING_AD_CNI_NEWS
প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, ৫৭, সুলতান মার্কেট (তয় তলা), দক্ষিনখান, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
আঞ্চলিক অফিস : সি-১১/১৪, আমতলা মোড়, ছায়াবিথি, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা।
Design & Developed BY PopularITLimited