,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

চট্টগ্রামে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমন:এ পর্যন্ত আক্রান্ত ২১৪৫ জন

বশির আলমামুন, চট্টগ্রাম ব্যুরো:

মহামারী করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমন। যতই দিন যাচ্ছে ততই এসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। করোনার ভয়াবহ চিত্র যেন চট্টগ্রামবাসীকে রীতিমত আতংকিত করে তুলেছে। গত ৩ এপ্রিল প্রথম একজন করোনা রোগী সনাক্ত হয় নগরীর দামপাড়ায়। এরপর থেকে তা লাফিয়ে বাড়তে থাকে বর্তমানে এ সংখ্যা দাড়ায় ২১৪৫ জনে। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের প্রায় একমাস পরে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ শুরু হয়েছিল চট্টগ্রামে। কিন্তু সংক্রমণ শুরুর প্রথম মাসে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে থাকলেও দ্বিতীয় মাসে চট্টগ্রামে করোনার বিস্ফোরণ ঘটে।
দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সবচেয়ে বিপজ্জনক এলাকা এখন চট্টগ্রাম। লকডাউন ও সামাকিজ নিরাপত্তা না মেনে অনিয়ন্ত্রিত চলাচল এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক প্রায় উন্মুক্ত থাকার কারণে চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসের দ্রুত বিস্তার ঘটছে। বিশেষজ্ঞরা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলছেন, ঈদের ছুটি শেষে মানুষ নগরে ফিরলে এ পরিস্থিতির আরও মারাত্মক বিপর্যয় ঘটবে।
চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৬ মার্চ চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়। চট্টগ্রামে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয় ৩ এপ্রিল। নমুনা পরীক্ষা শুরুর এক মাসের মাথায় ২৬ তারিখ এপ্রিল মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ৫৩ জনে। তবে গত একমাসে বন্দরনগরীতে করোনা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে দ্রুত গতিতে।
সর্বশেষ গতকাল বৃহস্পতিবার (২৮ মে) একদিনেই ২১৫ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ১৮২ জন চট্টগ্রাম নগরের এবং ৩৩ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা।
জেলার সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ‘২৮ মে চট্টগ্রামে মোট ৬০২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে বিআইটিআইডিতে ২০৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩৮ জন, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমাল সায়েন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) ল্যাবে ১০০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩৬ জন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ল্যাবে ২৫৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৩৮ জনের করোনা পজেটিভ পাওয়া যায়। এছাড়া কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ল্যাবে ৩৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে চট্টগ্রামের তিনজনের করোনা শনাক্ত হয়।’
এদিকে এ অবস্থায় বন্দরনগরীর অবস্থা ভয়াবহ হতে চলেছে দিন দিন। গত ৩ এপ্রিল চট্টগ্রাম নগরীর দামপাড়ায় ৬৭ বছর বয়সী এক ব্যক্তির শরীরে প্রথম করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়। ওই ব্যক্তি তার ওমরাফেরত মেয়ের মাধ্যমে সংক্রমিত হন বলে ধারণা করা হয়। পরে ৫ এপ্রিল দ্বিতীয় করোনা রোগী শনাক্ত হন ওই ব্যক্তির ২৫ বছর বয়সী ছেলে। এর পরে এক-দুই করে নগরে করোনার পরিস্থিতি অবনতি হতে শুরু করে। তবে গত ২৬ এপ্রিল থেকে পোশাক কারখানাগুলো চালুর সঙ্গে সঙ্গে নগরের অঘোষিত লকডাউন পরিস্থিতি ভেঙ্গে পড়ে। এর পরে ধারণার চেয়ে দ্রুত গতিতে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হয়।
চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, এ পর্যন্ত চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২২০০ জন। এর মধ্যে শুধুমাত্র চট্টগ্রাম শহরেই সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ১৭৪১ জন। যা মোট রোগীর প্রায় ৮০ শতাংশ।
প্রথমদিকে নগরের প্রবেশমুখ সিটি গেট, আকবরশাহ ও পাহাড়তলী এলাকাকে ঘিরে করোনার বিস্তার ঘটলেও দ্বিতীয় মাসে সংক্রমিত হয়েছেন নগরের প্রায় সব এলাকার মানুষ। ইপিজেড-বন্দর বা চকবাজারের মতো জনবহুল এলাকায় যেমন করোনার বিস্তার ঘটেছে, তেমনি অপেক্ষাকৃত কম জনবহুল চাঁন্দগাও বা মোহরার মতো এলাকাও বাদ যায়নি।
চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক হাসান শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘জেলা ও নগরের অভ্যন্তরে যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল থাকায় চট্টগ্রামে করোনার সংক্রমণ অতিদ্রুত ছড়িয়েছে। বিশেষ করে মহাসড়ক দিয়ে পণ্যবাহী গাড়িতে যাত্রী পরিবহন হচ্ছে। মাইক্রোবাস ও গাড়িও চলছে। এতে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ থেকে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী ও সাধারণ লোকজন চট্টগ্রামে নিয়মিত আসা-যাওয়া করছেন। এ কারণে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের পর বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে চট্টগ্রাম।’

Leave a Reply

VIDEO_EDITING_AD_CNI_NEWS
প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, ৫৭, সুলতান মার্কেট (তয় তলা), দক্ষিনখান, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
আঞ্চলিক অফিস : সি-১১/১৪, আমতলা মোড়, ছায়াবিথি, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা।
Design & Developed BY PopularITLimited