,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি

সেলিনা আক্তার : ছয় বছর আগে চাঁদপুরের মতলব উপজেলার আনসার আলী নদীভাঙনে গৃহহীন হয়ে পড়ে। পাঁচ সদস্যের পরিবার নিয়ে কিছুদিন খোলা আকাশের নিচে থাকতে হয়। তারপর এক আত্মীয় তার বাড়ির রান্না ঘরে তাদের থাকতে দেয়। আর্থিক সঙ্গতি না থাকায় জমি কিনে ঘর তোলা সম্ভব হয়নি। কখনও বাড়ি করতে পারবে সেটা ভাবেনি। মতলব উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় সরকারি খাসজমিতে ছোটো চরকালিয়া প্রকল্পে আনসার আলীর পরিবারের একটি স্থায়ী থাকার জায়গা হয়েছে। আনছার আলীর মতো আমাদের দেশে অসংখ্য পরিবার রয়েছে যাদের বাড়িঘর বলতে কিছুই নেই। শহরের ফুটপাত, রাস্তা কিংবা রেললাইনের পাশে বা বাসস্ট্যান্ড, লঞ্চঘাটে কোনোরকম খুপড়ি ঘরে, কখনো বা খোলা আকাশের নিচে থাকতে হচ্ছে অসংখ্য মানুষকে। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় সরকার নানাভাবে এ সকল মানুষের থাকার ব্যবস্থা করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বাছিরনের বয়স সত্তরের কাছাকাছি। বয়সের ভারে ন্যুব্জ, চোখেও তেমন দেখেন না, কানেও ভালোভাবে শোনেন না। স্বামী মারা গেছেন ৭-৮ বছর আগে। বাছিরনের কোনো ছেলে নাই। মেয়ে থাকলেও স্বামীর সংসারেই টানাটানি। বাছিরনের দেখাশোনা করার মতো কেউ নেই বললেই চলে। তার গ্রামের একজন এই অবস্থা দেখে তাকে কুড়াগাছা ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডে নিয়ে যান এবং তাকে বয়স্কভাতা পাবার সুযোগ করে দেন। বাংলাদেশের সংবিধানের ১৫ নম্বর অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রের অন্যতম মৌলিক দায়িত্ব পরিকল্পিত অর্থনৈতিক বিকাশের মাধ্যমে উৎপাদনশক্তির ক্রমবৃদ্ধি সাধন এবং জনগণের জীবনযাত্রার বস্তু ও সংস্কৃতিগত মানের দৃঢ় উন্নতি সাধন- যাতে নাগরিকের জন্য অন্ন, বস্ত্র, আশ্রয়, শিক্ষা ও চিকিৎসাসহ জীবনধারণের মৌলিক উপকরণের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা যায়।

সরকার সবসময় নাগরিকের মৌলিক উপকরণের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে সচেষ্ট। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে কোনো মানুষ না খেয়ে মারা যাবে, আর্থিক অনটনে জীবনের মৌলিক চাহিদা পূরণ করতে পারবে না বা বাসস্থানের অভাবে বাস্তুহীন বসবাস করবে এটা কাম্য হতে পারে না। তাই কল্যাণ রাষ্ট্রে সামাজিক নিরাপত্তা বলতে সামাজে বসবাসের জন্য আইনগত অধিকারকে ছাপিয়ে মানুষের আর্থিক, বাসস্থান, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও খাদ্যের নিরাপত্তা সামনে চলে এসেছে। বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ২৮(১) এ আছে; কেবল ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারীপুরুষ ভেদে বা জন্মস্থানের কারণে কোনো নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রদর্শন করবে না। সে প্রেক্ষিতে সরকার সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির মাধ্যমে সকল প্রকার বৈষম্য হ্রাসে উল্লেখযোগ্য কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে বয়স্কভাতা, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলাদের ভাতা, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা, প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপবৃত্তি, হিজড়া জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচি, বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কার্যক্রম, ক্যান্সার কিডনী ও লিভার
সিরোসিস রোগীদের আর্থিক সহায়তা কর্মসূচি, চা শ্রমিকের জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচি, সুদমুক্ত
ঋণ ইত্যাদি। বাংলাদেশের সামাজিক নিরাপত্তার ইতিহাস অনেক পুরোনো। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ
মুজিবুর রহমান ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে যুক্তফ্রন্ট সরকারের সর্বকনিষ্ঠ মন্ত্রী
হিসেবে ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। তাঁর প্রধান কাজ ছিল সামাজিক
নিরাপত্তা কার্যক্রম সচল রাখা। এরপর স্বাধীন বাংলাদেশে সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থার উপর
বিশেষ গুরুত্বারোপ করা হয়।সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে বিভিন্ন সময়ে সরকার বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গীতে বিবেচনা ও উপস্থাপন করেছে। তবে এর মূল লক্ষ্য ছিল সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর শিক্ষা, স্বাস্থ্য,
খাদ্য, বাসস্থান ইত্যাদির নিশ্চয়তা বিধান করা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিকে তাঁর প্রধান দশটি অগ্রাধিকার কর্মসূচির অন্যতম হিসেবে গ্রহণ করেছেন। বর্তমানে সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থার মূল অংশীজন হলো জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠী এবং বিভিন্ন কারণে সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী। এদের জীবনমানের উন্নয়ন ব্যতীত উন্নয়নশীল
বাংলাদেশ বা উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণ সম্ভব নয়। সে আলোকে সরকারের জাতীয় সামাজিক
নিরাপত্তা কৌশল ঠিক করা হয়েছে। এ কৌশল অনেকটা মানবিক ও সামাজিক মূল্যবোধতাড়িত।

Leave a Reply

VIDEO_EDITING_AD_CNI_NEWS
প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, ৫৭, সুলতান মার্কেট (তয় তলা), দক্ষিনখান, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
আঞ্চলিক অফিস : সি-১১/১৪, আমতলা মোড়, ছায়াবিথি, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা।
Design & Developed BY PopularITLimited