,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

সাঁতার কাটার কৌশল

সিএনআই নিউজ : কৌশল অবলম্বন করে পানিতে শরীর ভাসিয়ে চলাচল করার সক্ষমতাকে সাঁতার বলে। প্রতিযোগিতা মূলক সাঁতার চার প্রকার যথা ফ্রিস্টাইল, ব্যাকস্ট্রোক, ব্রেস্ট স্ট্রোক এবং বাটারফ্লাই। সাঁতার জলক্রীড়ার অন্তর্ভুক্ত একটি খেলা।  ১৮৯৬ খ্রিস্টাব্দে গ্রিসের এথেন্সে প্রথম আধুনিক অলিম্পিক গেমসে সাঁতার ছিল একটি অন্যতম ইভেন্ট। ১৯০৪ খ্রিস্টাব্দে “সেন্ট ‍লুইস” এ অনুষ্ঠিত তৃতীয় অলিম্পিকে ডাইভিং অন্তর্ভুক্ত হয় এবং ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে “স্টকহোমস” অলিম্পিক গেমসে মহিলাদের সাঁতার ও ডাইভিং অন্তর্ভুক্ত হয়। সাঁতার খেলার ক্ষেত্রে সকল সদস্য রাষ্ট্র “ফিনা” প্রবর্তিত নিয়ম-কানুন অনুসরণ করেন। ব্যস্ত নগরজীবনে সাঁতার কাটার সুযোগ খুব সীমিত। ঢাকায় গ্রামের মতো পুকুর না মিললেও সুইমিংপুলে সাঁতার শেখার ও সাঁতার কাটার সুযোগ রয়েছে। আমরা অনেকেই নৌকা ভ্রমণ বা সমুদ্র সৈকতে গোসল করতে পছন্দ করি। এ সময় সাঁতার জানাটা খুবই জরুরি।সাঁতার শুধু দুর্ঘটনায় জীবন বাঁচানোর জন্যই নয়, সাঁতারের অনেক উপকারী দিকও রয়েছে। সাঁতার শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। সাঁতার মেদভুঁড়ি কমাতে, গরমে আরাম এবং মানসিক প্রশান্তি এনে দিতেও সাহায্য করে। এটি একটি ভালো শারীরিক ব্যায়াম। নিয়মিত সাঁতার কাটলে হাঁটার মতো পরিশ্রমও হবে। এছাড়া শরীরের কলেস্ট্ররেল দ্রুত কমাতে চাইলে সাঁতারের বিকল্প নেই।অনেকেই দাপাদাপি করে ৫-৭ মিনিট সাঁতার কেটেই হাঁপাতে থাকে, কিন্তু সেটা সঠিক নিয়ম না। সঠিকভাবে সাঁতার শিখলে আপনি একটানা অনেকসময় ধরে সাঁতার কাটতে পারবেন। প্রতিদিন সাঁতার কাটার প্র্যাকটিস থাকলে আপনিও এক থেকে দু’ মাইল সাঁতার কেটে তীরে নিয়ে আসতে পরেন জীবনতরী।তবে পুলে সাঁতার কাটতে হলে আগে প্রশিক্ষণ নেয়া ভালো। ভারি পোশাকের পরিবর্তে হালকা পোশাক পরে সাঁতার কাটার ভালো। আমরা অনেকেই জানি না সঠিক সাঁতার কাটর নিয়মগুলো। তাহলে জেনে নিন সঠিক সাঁতার কাটার নিয়ম।

  • নাকসহ মাথা পানিতে ডুবিয়ে সাঁতার কাটতে হবে।
  • যে কেউ চাইলে ৩০ সেকেন্ড দম বন্ধ রাখতে পারেন, আর ৩ সেকেন্ডে বুক ফুলিয়ে নিঃশ্বাস নিতে পারেন। তার মানে, ২ মিনিটে ২ বার নিঃশ্বাস নিলেই হলো।
  • যতক্ষণ দম বন্ধ থাকে ততোক্ষণ মানুষ কোনো চেষ্টা ছাড়াই পানিতে ভেসে থাকতে পারে, হাত পা নাড়ানোর কোনো দরকার নেই। এ কথাটা মনে প্রাণে বিশ্বাস করতে হবে।
  • ৩০ সেকেন্ড পর নিঃশ্বাস নেবার দরকার হলে শুধু সেই সময়ে হাত নেড়ে পানিতে মৃদু ধাক্কা দিয়ে ঘাড় কাত করে, মাথার বেশিরভাগটা পানির নিচে থাকা অবস্থায়, ঠোঁট দুটো শুধু পানির ওপরে এনে নিঃশ্বাস নিতে হবে। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে নিঃশ্বাস নিয়েই ফের মাথাকে পানির মধ্যে ডুবিয়ে ফেলতে হবে। এই নিঃশ্বাস নেবার টেকনিকটা প্র্যাকটিস করতে হবে।
  • সাঁতার কাটা অবস্থায় এগিয়ে যাবার জন্য হাত ও পা দুটোই একসঙ্গে ব্যবহার করতে হবে। পায়ের টেকনিকটা জরুরি। পা ডুবে থাকলে শরীর বাঁকা হয়ে পানির সঙ্গে বাধা তৈরি করে এবং সামনে এগোনোর গতি কম হয়। তবে এটাও ২-৩ সপ্তাহ প্র্যাকটিস করলে আয়ত্তে আনা সম্ভব।
  • পানিতে মাথা ডোবানো অবস্থায় মানুষ আতঙ্ক বোধ করতে থাকে, তাতে দ্রুত দম ফুরিয়ে যায়। তখন নিজেকে শান্ত রাখতে হবে এবং আতঙ্কিত হওয়া যাবে না। আর এর ফলে ঘন ঘন দম নিতে হবে না।
  • সাঁতারের চশমা থাকলে ভালো হয়। যেকোনো পানিতে ট্রাভেলে যাবার সময় ২০০-৩০০ টাকার মধ্যে একটা চশমা কিনে নিতে পারেন।
  • পুরোপুরি সাঁতার শেখার আগে কেউ সাগর বা নদীতে নামতে চাইলে, প্লাস্টিকের লাইফ জ্যাকেট সঙ্গে রাখা ভালো।


Leave a Reply

VIDEO_EDITING_AD_CNI_NEWS
প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, ৫৭, সুলতান মার্কেট (তয় তলা), দক্ষিনখান, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
আঞ্চলিক অফিস : সি-১১/১৪, আমতলা মোড়, ছায়াবিথি, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা।
Design & Developed BY PopularITLimited