,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

বানভাসিদের পাশে দাঁড়াতে মানুষের দ্বারে দ্বারে শিক্ষার্থীরা

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল : গাইবান্ধার
সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের উপর দিয়ে প্রবাহিত তিস্তার
চরাঞ্চলের বানভাসিরা ত্রাণ ও ওষুধ চায়। টানা ১২ দিন ধরে
পানিবৃদ্ধি অব্যাহত থাকার পর গত শুক্রবার রাত হতে পানি কমতে শুরু
করেছে। ইতিমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে প্রায় ২০ হতে ২২

সেন্টিমিটার পানি কমে গেছে। তবে পানি কমার সাথে-সাথে
বানভাসিদের মাঝে দেখা দিয়ে নানাবিধ রোগব্যধি, ত্রাণ ও গো-
খাদ্য সংকট। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সোলেমান আলী
নিজে ওষুধ বিতরণ করছেন। প্রয়োজনের তুলনায় মেডিকেল টিমের
সংখ্যা অনেক কম। সে কারণে বানভাসিরা ওষুধ পেতে বিলম্ব হচ্ছে।
পর্যাপ্ত মেডিকেল টিম না থাকার কারণে এখনো অনেক দূর্গম
চরাঞ্চলে বানভাসিদের কাছে ওষুধ পৌঁছেনি। বিশেষ করে পানি
বিশুদ্ধ করন ট্যাবলেট ও গো-খাদ্যের তীব সংকট দেখা দিয়েছে।
সরকারি বেসরকারি ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত থাকলেও তা পরিমাণে কম।
চরবাসীর দাবি পানি বসতবাড়ি থেকে নেমে গেলেও সহজে
বাড়িতে উঠা যাবে না। কারণ ঘরবাড়ির যে অবস্থা না সেরে
বাড়িতে থাকা যাবে না। মানুষের চেয়ে গৃহপালিত পশুপাখি
নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে বানভাসিরা। বেলকা চরের রেজাউল
ইসলাম জানান, গরু ও ছাগল হল চরবাসীর বড় সম্বল। প্রতি কুরবানীর
ঈদে চরবাসী গরু ও ছাগল বিক্রি করে লাখ আয় করে। এ বছর সে
আশা গুড়ে বালি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সোলেমান
আলী জানান, পানিবন্ধি পরিবারদের মাঝে শুকনো খাবার, ত্রাণ
সামগ্রী, ওষুধ ও গো-খাদ্য বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। আরও ত্রাণ
সামগ্রীর জন্য চাহিদা পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পাওয়া মাত্রাই তা
বিতরণ করা হবে।

Leave a Reply

VIDEO_EDITING_AD_CNI_NEWS
প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, ৫৭, সুলতান মার্কেট (তয় তলা), দক্ষিনখান, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
আঞ্চলিক অফিস : সি-১১/১৪, আমতলা মোড়, ছায়াবিথি, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা।
Design & Developed BY PopularITLimited