,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

আমাদের রাজনীতি ও প্রত্যাশা

তোফায়েল হোসেন তোফাসানি :
সময়টা এখন ২০১৯ সাল। স্বাধীনতা পরবর্তী সময় থেকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের রাজনীতিতে অনেক পরিবর্তন এসেছে। ২০১৯ সালে এসে দেশকে এক নতুন বাংলাদেশ হিসেবে দেখছি আমরা সকলে। শুধু দেশই নয় পরিবর্তন হয়েছে মানুষের রাজনৈতিক মনোভাবও। 
সময়ের সঙ্গে সঙ্গে দেশ, অর্থনীতি ও সমাজের পরিবর্তন ঘটে। অর্থনৈতিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন একটি দেশের জন্য দরকার। কিন্তু রাজনৈতিক দলেরও গুনগত মান বজায় রাখতে হবে। দেশের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য বক্তব্য দিতে হবে। দলের কর্মীদের কাছে সময়োপযোগী নির্দেশ দিতে হবে। দলের সদস্য সংখ্যার তালিকা বড় না করে প্রকৃত দেশ প্রেমিকদের রাজনীতিতে আনতে হবে।
আওয়ামী লীগ সরকারের চতুর্থবার ক্ষমতায় আসা দেশের জন্য কল্যাণকর মনে করেন অনেকে। কারন, বিগত দিনের রাজনৈতিক শিক্ষা তাই বলে। স্বাধীনতার পর থেকে আমরা কি দেখেছি? যখন কোন দল ক্ষমতায় আসে, তখন আগের সরকারের সকল উন্নয়ন কর্মকান্ড বন্ধ করে দেয়া হয়। রাস্তা-ঘাট, ব্রীজ-কালভার্ট, অবকাঠামোগত উন্নয়ন সব কিছুই পরে থাকে রাজনৈতিক আক্রোশে। কষ্ট হয় আমাদের মত সাধারণ জনগণের। দেশ থাকে পিছিয়ে।
এক সময়ের কারফিউ, হরতাল, ভয়তাল, ভাংচুর, আগুন সন্ত্রাস, খুন, গুম আমাদেরকে ভীত জাতিতে পরিণত করেছিল। হরতাল, আগুন সন্ত্রাস আর লাশের রাজনীতি আমাদের অনেক কাঁদিয়েছে। গণতন্ত্র বিকাশের সম্ভাবনাকে প্রতিদিন অন্ধকারে ছুড়ে ফেলে দেয়া হত। এ দেশের বিগত দিনের রাজনৈতিক বাস্তবতার দিকে যত দূর তাকানো যাবে, এ বিষয়টি ততই স্পষ্ট হবে। রাজনীতিকদের হাতে জনগণ সবচেয়ে বেশি প্রতারিত আর নির্যাতিত হয়েছেন। রাজনীতি আর নির্বাচনের হাতিয়ার হিসেবে ‘জনগণ’ শব্দটির বহুল ব্যবহার হয়েছে। কিন্তু জনগণের চাওয়া-পাওয়াকে রাজনীতিবিদরা খুব কমই মূল্য দিয়েছেন। দেশ ও জনগণের কথা বলে ফায়দা লুটেছেন এক শ্রেণীর রাজনীতিবিদরা। সুবিধার ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে হত্যা করা হয়েছে কতজনকে। 
এসব হরতাল, আগুন সন্ত্রাস, লাশের রাজনীতির কথা আমরা ভুলতে চলেছি। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে আপন গতিতে। এখন আর হরতাল আর ভয়তালে লাশ হয়ে বাড়ি ফেরার আতংকে কেউ নেই। গণতন্ত্রের চর্চ্চার বিকাশ ঘটছে সকলের মাঝে। দেশের প্রকৃত ইতিহাস, ভাল-মন্দ বুঝতে শিখেছি আমরা। 
তবে, এখনও রাজনীতিবিদদের কথায় বিভ্রান্ত হচ্ছেন দেশের মানুষ। বিপথগামী অপ-রাজনীতির প্রেতাত্মা আমাদের উপর এখনও ভর করে আছে। 
দেশের দৃশ্যমান উন্নয়নের কোন বিকল্প নেই। এ সাফল্য আরও গতিশীল হওয়ার সুযোগ রয়েছে। এ জন্য দুর্নীতিমুক্ত সমাজ, জনকল্যাণমূলক প্রশাসন আর গণতন্ত্রের সুপ্রতিষ্ঠার ঘোষনা দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে বর্তমান সরকার। কলুষমুক্ত দেশপ্রেমিক রাজনীতিকদের নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে বহুদূর। 
আওয়ামী লীগের দীর্ঘ শাসনকালে অনেক ইতিবাচক দিক যুক্ত হয়েছে। প্রশাসনিক অদক্ষতা আর দুর্নীতিকে লুকোনো যাচ্ছে না এখন। মানুষের যাপিত জীবনে স্বস্থি ফিরে আসার সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। এ কারণে এ দেশের আশাবাদী মানুষ প্রত্যাশার দীপ জ্বালিয়ে রাখতে চায়। আওয়ামী লীগ সঠিক দিকনির্দেশনায় এগিয়ে যাবে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাস্নাত জাতি। অনান্য রাজনৈতিক দলের কাছেও মানুষ চায় শান্তি ও উন্নয়নের রাজনীতি। বিগত দিন থেকে আমাদের শিক্ষা নিয়ে আরো এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা সকলের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

VIDEO_EDITING_AD_CNI_NEWS
প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, বি-১১৬/১ শিকদার টাওয়ার. বাসস্ট্যান্ড, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা-১৩৪০
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত : ক্রাইম নিউজ ইন্টারন্যাশনাল ( প্রা: ) লি:,
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৭১১০৭০৯৩১
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
কপিরাইট : সিএনআই নিউজ ( নিউজ এজেন্সী )
Design & Developed BY PopularITLimited