,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

নোয়াখালীতে গৃহকর্মীকে বেধড়ক পেটালেন পুলিশ কনস্টেবল

downloadসিএনআই নিউজ : নোয়াখালীতে পুলিশের এক নারী কনস্টেবলের বিরুদ্ধে তার বাসার কাজে নিয়োজিত শিশু গৃহকর্মীকে হাত পা বেঁধে বেধড়ক পেটানোর ভিডিও চিত্র ছড়িয়ে পড়েছে।

মুঠোফোনে ধারণকৃত ওই ভিডিও চিত্রে শিশুটিকে বাসার ছাদে নিয়ে হাত পা বাঁধা অবস্থায় লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটাতে দেখা যায়। এ সময় শিশুটিকে নির্যাতনে লাঠি হাতে আরো এক নারীকে সহায়তা করতে দেখা যায়।

সুধারাম মডেল থানার ওসি মো. আনোয়ার হোসেন জানান, অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টেবল রিনা আক্তার নোয়াখালী পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারে কর্মরত। ঘটনার জানাজানি হলে বৃহস্পতিবার রাতে শিশুটিকে নিয়ে ১৫ দিনের ছুটিতে কর্মস্থল ত্যাগ করেন রিনা।

স্থানীয় লোকজন জানায়, মাইজদী শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামের পশ্চিমে খন্দকার পাড়ায় অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা একেএম গোলাম মোস্তফার বাসার গত এক বছরের বেশি সময় ধরে কনস্টেবল রিনা আক্তার তার মা ও ছেলের স্ত্রী সহ বসবাস করে আসছেন। তাদের বাড়ি মৌলভী বাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায়। সেই সুবাধে এলাকার এক দিনমজুরের মেয়ে কলিকে (১৩) বাসায় কাজ করতে নিয়ে আসেন। বিভিন্ন প্রয়োজনে কলি পাড়ার দোকানে আসা যাওয়া করে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন দেখে লোকজন জিজ্ঞাসাবাদ করলে কলি তাকে নির্যাতনের কথা জানায়।

বৃহস্পতিবার সকাল আটটার দিকে কনস্টেবল রিনা আক্তার শিশুটিকে বাসার ছাদে নিয়ে হাত পা বাঁধা অবস্থায় লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকেন। এ সময় পাশের বাসা থেকে মুঠোফোনে নির্যাতনের চিত্র ধারণ করা হয়। পরে লোকজন থানায় খবর দেয়।

সুধারাম মডেল থানার ওসি মো: আনোয়ার হোসেন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তবে, এ সময় শিশুটি তাকে নির্যাতনের বিষয়ে পুলিশকে কোন তথ্য দেয়নি। শুক্রবার পুলিশ জানতে পারে ১৫ দিনের ছুটি নিয়ে কনস্টেবল রিনা আক্তার কর্মস্থল ত্যাগ করেছেন। এ ব্যপারে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান ওসি।

পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের কমানডেন্ট মো: রেজাউল করিম জানান, টাকা চুরির অভিযোগে কনস্টেবল রিনা আক্তারের বাসায় তার গৃহকর্মীকে নির্যাতনের কথা তিনিও শুনেছেন। এ ব্যপারে পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে প্রধান করে তিন জন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, বি-১১৬/১ শিকদার টাওয়ার. বাসস্ট্যান্ড, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা-১৩৪০
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত : ক্রাইম নিউজ ইন্টারন্যাশনাল ( প্রা: ) লি:,
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৮৫৬৪১৫০০০
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
কপিরাইট : সিএনআই নিউজ ( নিউজ এজেন্সী )
Design & Developed BY PopularITLimited