,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | সারাদেশ | রাজনীতি | বিনোদন | খেলাধুলা | ফিচার | অপরাধ | অর্থনীতি | ধর্ম | তথ্য প্রযুক্তি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | স্বাস্থ্য | নারী ও শিশু | সাক্ষাতকার

কাউনিয়ার মশিউরের ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পুরনে বাধা দারিদ্রতা

Pic_10মনিরুল ইসলাম মিন্টু, সিএনআই নিউজ, কাউনিয়া (রংপুর) :
রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার অদম্য মেধাবী দারিদ্রতাকে জয় করে কাউনিয়া কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে সাফল্যের সাথে জিপিএ-৫ পেয়ে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ন হয়ে এলাকাবাসীকে অবাক করে দিয়েছে। আঁধার ঘরে মশিউর যেন একচিলতে চাঁদের আলো। কৃষকের সন্তান মশিউর রহমানের পরিবারে অভাব নিত্যদিনের সঙ্গী। ঠিক মতো দুই বেলা দু’মুঠো খাবার জোটেনা পেটে। তবুও থেমে যায়নি সে। হার মানেনি প্রতিবন্ধী আর দারিদ্রোতার কাছে। পিইসি, জেএসসি, এসএসসির, এইচএসসি জিপিএ ৫ এবং সর্বশেষ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ন হাসি ফুটিয়েছে দুঃখী মা- বাবার মুখে। শিক্ষা জীবনের এ সাফল্যে তাদের দুচোখে এখন এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন। কিন্তুু বাধা একটাই দারিদ্রতা। মশিউরের চোখে মুখে শুধু বিষন্মতা ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ন হয়েও তার ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পুরন হবে কি ?
উপজেলার টেপামধুপুর ইউনিয়নের রাজিব গ্রামের কৃষক আবুল কালাম এবং মঞ্জুয়ারের শারীরিক প্রতিবন্ধী ছেলে মশিউর রহমান। তিন ভাই-বোনের মধ্যে মশিউর রহমান সবার বড় তার ছোট সুমি প্রাথমিক থেকে এক সাথে পড়ে। আর সব ছোট বোন টেপামধুপুর হাই স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী। ছাত্র হিসেবে মশিউর খুবই ভালো প্রাথমিক সমাপনী এবং জেএসসি পরীক্ষায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পায়। টেপামধুপুর দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসিতেও গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে কাউনিয়া কলেজে বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হয়। সকলের সহযোগিতায় মশিউর রহমান এইচএসসিতেও জিপিএ -৫ পেয়ে। তার ইচ্ছে পুরনের লক্ষে লেখা পড়া চালিয়ে যায় এবং সে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির সুযোগ পায়।
মশিউর রহমানের মা মঞ্জুয়ারা বেগম জানান, নিজের সম্পত্তি বলতে সামান্য কিছু আবাদি জমি আছে। আয়ের উৎস সারা দিন জমিতে কাজ করে যে ক’টা টাকা পাওয়া যায় তা দিয়ে চলে সংসার। এই আয়ে তিন ছেলে মেয়ের লেখা পড়ার খরচ চলানো খুব কষ্টকর। মশিউর জন্মগতভাবে শারীরিক প্রতিবন্ধী সেই ছোট বেলা থেকে কঠোর পরিশ্রম করে মেডিকেলে ভর্তিরসুযোগ পেয়েছে। কিন্তু এর পর কি হবে? ডাক্তারী পড়তে অনেক টাকা লাগে। তার যে ইচ্ছে এই অভাবি সংসারে স্বামীর সামান্য আয়ে যেখানে জীবিকা চালানো কঠিন সেখানে ছেলেকে পড়াবো কি দিয়ে। তিনি বলেন, সমাজের বৃত্তবানরা যদি তাদের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য আবেদন জানান।
মশিউর এর বাবা আবুল কালাম বলেন, মশিউর বাড়িতে সংসারের অন্যান্য কাজ শেষ করে মনোযোগ দিতো লেখা পড়ায়। আল্লাহ তার মনের আশা পুরন করেছে। সে অন্যান্য পরীক্ষার মতো তার স্বপ্ন ডাক্তার হবে আল্লাহ আমার ছেলের দিকে তাকিয়েছে।
মশিউর জানায়, ছোট বেলা থেকে তার ইচ্ছে উচ্চ শিক্ষা শেষ করে ডাক্তার হয়ে সমাজের গরীব অসহায় মানুষের সেবা করবে। কিন্তু বাবার সামান্য আয়ে আমাদের ভাই বোনের লেখা পড়ার খরচ চালানো কিভাবে সম্ভব। এখন সমাজের বিত্তবানরা যদি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় তা হলে আমার স্বপ্ন পুরন হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রধান সম্পাদক : তোফায়েল হোসেন তোফাসানি
বার্তা সম্পাদক : রোমানা রুমি, বি-১১৬/১ শিকদার টাওয়ার. বাসস্ট্যান্ড, সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা-১৩৪০
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত : ক্রাইম নিউজ ইন্টারন্যাশনাল ( প্রা: ) লি:,
ফোন ও ফ্যাক্স : ০২-৭৭৪১৯৭১, মোবাইল ফোন : ০১৮৫৬৪১৫০০০
ই-মেইল : cninewsdesk24@gmail.com, cninews10@gmail.com
কপিরাইট : সিএনআই নিউজ ( নিউজ এজেন্সী )
Design & Developed BY PopularITLimited